শনিবার,   ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,   সকাল ১০:০২,  ৭ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
Home প্রথম পাতা-৫ এক পলকে তিন সিটির প্রার্থী ও ভোটার সংখ্যা

।। জবাবদিহি ডেস্ক।।

রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আজ সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা চলবে। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে গতকাল প্রত্যেক কেন্দ্রে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী মালামাল পাঠিয়েছে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসাররা। একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে বড় দুই দলের বাঁচা-মরার লড়াই হবে আজ তিন সিটির ভোটের মাঠে। আসুন দেখে নেই, এক নজরে তিন সিটির প্রার্থী ও ভোটার সংখ্যা।

রাজশাহী :
এ সিটিতে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সংখ্যা ২১৭ জন। মেয়র প্রার্থী পাঁচজন। কাউন্সিলর প্রার্থী ১৬০ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন ৫২ জন। মেয়র প্রার্থীরা হলেন—আওয়ামী লীগের এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন (নৌকা), বিএনপির মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল (ধানের শীষ), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির মো. হাবিবুর রহমান (কাঁঠাল), গণসংহতি আন্দোলনের মো. মুরাদ মোর্শেদ (হাতি), ইসলামী আন্দোলনের মো. শফিকুল ইসলাম (হাতপাখা)।

এ সিটিতে ভোটার ৩ লাখ ১৮ হাজার ১৩৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৫৬ হাজার ৮৫ জন এবং নারী ১ লাখ ৬২ হাজার ৫৩ জন। সাধারণ ওয়ার্ড ৩০, সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১০। ভোট কেন্দ্র ১৩৮ ও ভোটকক্ষ ১০২৬টি। তবে ১৩৮টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১৪টিকেই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। আর ঝুঁর্কিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থাও করা হচ্ছে।

সিলেট :
এ সিটিতে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সংখ্যা ১৯৭ জন। এর মধ্যে মেয়র প্রার্থী সাতজন। কাউন্সিলর প্রার্থী ১২৭ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী ৬৩ জন। মেয়র প্রার্থীরা হলেন—আওয়ামী লীগের বদর উদ্দিন আহমদ কামরান (নৌকা), বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী (ধানের শীষ), মহানগর জামায়াতের আমির এহসানুল মাহবুব জুবায়ের (টেবিল ঘড়ি), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. মোয়াজ্জেম হোসেন খান (হাতপাখা), বাসদের মো. আবু জাফর (মই), স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. এহছানুল হক তাহের (হরিণ), বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিম (বাস)। যদিও তিনি নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন।

এ সিটিতে ভোটার ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৪ জন এবং নারী ১ লাখ ৫০ হাজার ২৮৮ জন। সাধারণ ওয়ার্ড ২৭, সংরক্ষিত ওয়ার্ড ৯।

বরিশাল :
এ সিটিতে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সংখ্যা ১৩৬ জন। এর মধ্যে মেয়র প্রার্থী সাতজন। কাউন্সিলর প্রার্থী ৯৪ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী ৩৫ জন। মেয়র প্রার্থীরা হলেন— আওয়ামী লীগের সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ (নৌকা), বিএনপির মো. মজিবর রহমান সরোয়ার (ধানের শীষ), সিপিবির আবুল কালাম আজাদ (কাস্তে), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ওবাইদুর রহমান মাহাবুব (হাতপাখা), বাসদের মনীষা চক্রবর্ত্তী (মই), জাতীয় পার্টির মো. ইকবাল হোসেন (লাঙ্গল) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বশীর আহমেদ ঝুনু (হরিণ)।

এ সিটিতে ভোটার ২ লাখ ৪২ হাজার ১৬৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ২১ হাজার ৪৩৬ জন এবং নারী ১ লাখ ২০ হাজার ৭৩০ জন। সাধারণ ওয়ার্ড ৩০, সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১০। ভোট কেন্দ্র ১২৩ ও ভোটকক্ষ ৭৫০টি।

এ সিটির ৪টি ওয়ার্ডের ১১টি কেন্দ্রে ৭৮টি বুথে ভোটগ্রহণ করা হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম পদ্ধতিতে। আর ১২৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ৫০টি অধিক গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) ও ৬২টি গুরুত্বপূর্ণ এবং ১১টি কেন্দ্রকে সাধারণ কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করেছে পুলিশ।

ও/র

Leave a Reply